| |

উত্তরায় চলাচলের পাকা রাস্তাকে প্লট বানিয়ে নিজ কর্মকর্তার নামে বরাদ্ধ

মাহফুজুল আলম খোকন: রাজধানীর উত্তরা ১০ নং সেক্টরের ১/এ সড়কে পার্শবর্তী তুরাগ থানা এলাকার আরেকটি সড়কের ৩ ভাগসহ প্লট বানিয়ে বরাদ্ধ দেয়ার অভিযোগ উঠেছে রাজউকের বিরুদ্ধে। গতকাল শুক্রবার বিকেলে প্লটটি দখলে নিয়ে খুটি বসাতে দেখাযায় ক্ষমতাসিন দলের নেতা কর্মীসহ একটি ডেভলাপার কোম্পানির লোকজন দের। এসময় দখলদারদের সাথে থেকে থেকে উত্তেজনা দেখা দেয় স্থানীয় এলাকা বাসির মধ্যে। রাজউক প্লট বরাদ্ধ দিলেও কি কারনে সরেজমিনে এসে দখল বুঝিয়ে দেয়নি এবং রিয়েল এ্যাষ্ট্রেট কোম্পানির লোকজনসহ ক্ষমতাসিন দলের লোকজনদের দিয়ে চলাচলের রাস্তা দখল করাচ্ছেন এই নিয়ে স্থানীয়দের মাঝে চলছে নানা গুঞ্জন। সড়ক দখল করে বানানো প্লটটি খোদ রাজউকের প্রভাবশালী কর্মকর্তাকেই বরাদ্ধ দেওয়া হয়েছে বলেও জানা গেছে। প্লটের বরাদ্ধকৃত মালিক মুহম্মদ মুসা আখন্দ, তিনি রাজউক এর প্লানিং শাখার উপ পরিচালক পদে কর্মরত আছেন। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উত্তরা-১০ নং সেক্টরের ১/এ রোডে পশ্চিম পাশে রাজউকের প্লানের বাহিরে কিছু পতিত জমি রয়েছে। যে জমিগুলোতে রাজউকের পরিকল্পনা অনুযায়ী কোনভাবেই ৩ অথবা ৫ কাঠার প্লট করার উপযোক্ত নয়। সেই পতিত জমির সাথেই রয়েছে তুরাগের হরিরামপুর ইউনিয়নের নক্সাভুক্ত ২০ ফিট প্রশস্ত মানুষ চলাচলের একটি রাস্তা। সড়কটি ইউনিয়নের উদ্যেগে পাকাও করা হয়। বর্তমানে রাস্তাটি দিয়ে সাধারণ মানুষের চলাফেরাও রয়েছে। রাজউকের পতিত জমির পাশের জায়গার মালিক ফিরোজ গং বাড়ী করার জন্য কিছু দিন পূর্বে রাজউক থেকে প্ল্যান পাশ করে। সেই প্ল্যানেও রাজউক এই ২০ ফিটের রাস্তাটি নক্সাতে দেখায়। কিন্তু রাজউকের একজন কমকর্তা সেই রাস্তাটির ১২ ফিট দখল করে প্লট বানিয়ে নিজের নামে বরাদ্ধ নেয় বলে জানিয়ে ছে নির্ভর যোগ্য একটি সুত্র। রাস্তা দখল করে রাজউক যে প্লটটি করে তার নাম্বার দেয়া হয় ২৫। এর বাইরে পাশের পতিত খন্ড ভুমিতে একই কাজ করার পায়তারা করছে বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসী। রাজউক প্ল্যানিং শাখার উপ পরিচালক মুহম্মদ মুসা আখন্দের নামে বারদ্ধকৃত প্লটটির সাইজও ইচ্ছেমত তৈরী করা হয়েছে বলেও অভিযোগ করেছে স্থানীয় এক ব্যাক্তি। রাজউক কর্তৃক বরাদ্ধ কৃত জমি ৩ কাঠা হলেও দখলে নেয়ার পরিমান দুই ছটাক কম ৪ কাঠা। ‘তিন কাঠার প্লট’ নামে বরাদ্ধ নিয়ে বিধিবহিভূত ভাবে রাস্তা দখল করে প্রায় ৪ কাঠার বুঝিয়ে দেয় রাজউক। এতে মানুষ চলাচলের ২০ ফিটের রাস্তাটির অর্থেকের বেশী দখল করা হয়। এ নিয়ে এলাকায় সাধারণ জনগনের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। এ নিয়ে ২০১৬ সালে এলাকার জনগণ রাজউক বরাবর একটি প্রতিবাদ লিপিও পাঠায়। কিন্তু রাজউকের অসাধু কর্মকর্তারা যোগসাজস করে পতিত জায়গায় রাস্তা দখল করে প্লট বানিয়ে নিজেদের কর্মকর্তার নামেই বরাদ্ধ দেয়।
জানা যায়, এ কাজে বরাদ্ধ গ্রহীতা রাজউকের উপপরিচালক মুসা আখন্দ যথেষ্ঠ প্রভাব খাটায়। ইচ্ছেমত সাউজের নক্সা তেরী করে ২০ফিট রাস্তার ১২ ফিট জায়গা দখল করে নেয়।

এই বিষয়ে জানতে চাইলে রাজউকের প্ল্যানিং শাখার উপ-পরিচালক মুহম্মদ মুসা আখন্দ বলেন, আমি রাজউক থেকে প্লটের বরাদ্ধ পেয়েছি, এখানে কারও কিছু বলার থাকলে রাজউকে যাক। রাস্তা দখলের বিষয়ে তিনি বলেন,রাজউক থেকে ৩ কাঠার যে জমি বরাদ্ধ দেয়া হয়ে ছে তাতে কোনরকম বাড়ি নির্মান করা সম্ভব না,তাই আমাকে রাস্তার জায়গা নিতে হয়েছে। এটা একান্তই রাজউকের শিদ্ধান্ত অনুযায়ী হয়েছে। এলাকা বাসির সমস্যাহলে তা রাজউক বুঝবে। এখানে জমি না পেলে রাজউক আমাকে অন্যকোথাও প্লট দিবে।