| |

তুরাগে লাশের মিছিল,জনমনে আতঙ্ক: আরো দুই লাশ উদ্ধার

মাহফুজুল আলম খোকনঃ রাজধানীর তুরাগে পৃথক ঘটনায় আরো দুই লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এই নিয়ে মাত্র ১৬ ঘন্টার ব্যবধানে মোট ৬ লাশ উদ্ধার করেছে তুরাগ থানা পুলিশ। বৃহস্পতিবার রাতে তিন সন্তান সহ মায়ের লাশ উদ্ধারের পর শুক্রবার দুপুর ১২ টায় রানাভোলা ৮ নং সড়কের মোঃ আমিরুল ইসলামের বাড়ির কাজের মেয়ে মাহিদা (১২) নামের এক কিশোরির ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

নিহত মাহিদা কুমিল্লার তুলাগাওয়ের বাসিন্ধা মৃত নুরু মিয়ার মেয়ে,সে এই বাড়িতে গত তিন বছর যাবৎ কাজ করতো। বাড়ির মালিক আমিরুল ইসলাম জানায়,দরজা জানালা খোলা অবস্থায় জানালার সাথে গলায় ওড়না দিয়ে ঝুলতে দেখে বাড়ির অন্য শিশুরা।

সেকি আত্মহত্যা করেছে নাকি খেলার সময় চেয়ার থেকে ফসকে এই ঘটনা আমরা বলতে পারছি না। অন্য দিকে রাত ১০ টার দিকে তুরাগের রমজান মার্কেট এলাকায় ঘড়ের সিলিং ফ্যানের সাথে গামছা বেধে আত্মহত্যা করেছে তানজিদ হাসান (১৮) নামের এক যুবক। নিহত তানজিদ উত্তরার মমতাজ উদ্দিন পলিটেকনিকেল কলেজের একাদশ শ্রেনীর ছাত্র ও বামনারটেক রমজান মার্কেট এলাকার আবুল হাসানের ছেলে।

নিহতের প্রতিবশিদের সুত্র থেকে জানা যায়,তানজিদ মাদকাশক্ত ছিল ইয়াবার আশক্তির কারনে সে একাজ করে থাকতে পারে। তবে নিহতের স্বজনরা জানায়, তানজিদের মোবাইল ফোন কেড়ে নেয়ায় বাবার সাথে অভিমান করে বিকেল ৪ টার দিকে দু তলায় তার নিজ কক্ষে ঢুকে দরজা বন্ধকরে দেয়। পরে রাত ১০ টার দিকে পাশের বাড়ির কেউ এক জন জানালাদিয়ে ঝুলতে দেখে পরিবার কে খবর দিলে তারা দরজা ভেঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করে, পরে পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ এসে লাশ উদ্দার করে ময়না তদন্তের জন্য ঢামেক মর্গে পাঠায়। এই বিষয়ে থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে বলেও জানা গেছে।

১৬ ঘন্টার ব্যাবধানে মাত্র ১ কিলোমিটার এলাকায় পরপর এমন লাশের মিছিল দেখে এলাকা জুড়ে চরম ভিতি বিরাজ করছে। কেউ ধারনা করছেন মা সন্তান সহ চার লাশের সাথে পরের ঘটনার কোন যোগ সুত্র রয়েছে কিনা..? এটা কোন রোগের আবির ভাব,নাকি শুধুই কাকতালিয়। কেউবা আবার ভিতি দুরকরতে কোরআন খতম দিচ্ছেন, আবার কেউ ইফতারিতে ফকির মিসকিন খাওয়াচ্ছেন। শনিবার দুপুরে কয়েকজন গনমাধ্যম কর্মিকে এক সাথে দেখে অনেকেই জিজ্ঞেস করছেন আবারোকি কেউ..?।

লাশ উদ্ধারের বিষয়ে জানতে চাইলে তুরাগ থানার অফিসার ইনচার্জ মাহাবুবে খোদা ক্রাইমবাংলাকে জানান, লাশ দুটি উদ্ধারের পর ঢামেক মর্গে প্রেরন করা হয়েছে। আপাদত আমাদের ধারনা ঘটনা দুটোই আত্মহত্যা, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট এলেই বিস্তারিত বলা যাবে। তবে এই বিষয়ে কাউকেই আটক বা গ্রেপ্তার করা হয়নি।