| |

‘নুংরা পরিবেশের কারনে বছরে ১৭ লাখ শিশুর মৃত্যু হচ্ছে’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : জাতিসংঘের স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) জানিয়েছে, দূষিত ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশের কারণে প্রতিবছর বিশ্বের ১৭ লাখ শিশু মারা যাচ্ছে।

বিশ্বে বিভিন্ন কারণে পাঁচ বছরের নিচে যে পরিমাণ শিশু মারা যাচ্ছে, তার চার ভাগের এক ভাগ মারা যাচ্ছে এই কারণে।

সোমাবার ডব্লিউএইচও তাদের এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, দূষিত পরিবেশে নোংরা পানি ও বাতাস এবং অন্যের ধূমপানের ধোঁয়া গ্রহণ ও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার জ্ঞান না থাকায় বিভিন্ন রোগে ভুগে এসব শিশু প্রাণ হারাচ্ছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এ ধরনের অপরিচ্ছন্ন ও দূষিত পরিবেশে মহামারির মতো শিশুদের ডায়রিয়া, কলেরা ও নিউমোনিয়া হয়ে থাকে। এতে বছরে প্রায় ১৭ লাখ শিশু মারা যাচ্ছে।

ডব্লিউএইচওর মহাপরিচালক মার্গারেট চান এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘দূষিত পরিবেশ একটি মারাত্মক বিষয়, বিশেষ করে শিশুদের জন্য।’ ‘দূষিত বাতাস ও পানি তাদের বাড়ন্ত অঙ্গপ্রত্যঙ্গ, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এবং তাদের ছোট দেহ ও শ্বাসতন্ত্রের জন্য খুবই বিপজ্জনক।’

ডব্লিউএইচওর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মাতৃগর্ভে শিশুরা দূষিত পরিবেশের কারণে রোগে আক্রান্ত হতে পারে। এ অবস্থায় ভূমিষ্ঠ শিশুরা অস্বাভাবিকও হতে পারে। এ ছাড়া জন্মের পরও তারা ঘরে-বাইরে একই ধরনের দূষণের শিকার হয়ে থাকে।

এ কারণে শিশুদের নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে এবং তারা দীর্ঘমেয়াদি শ্বাসকষ্টে পড়ে যেতে পারে। বায়ু দূষণ হৃদরোগ, স্ট্রোক ও ক্যানসারের মতো রোগের প্রবণতা বাড়াচ্ছে।

বিশুদ্ধ পানি ও বাতাসের অভাব থাকলে বাড়িতেও থেকে দূষণজনিত রোগের ঝুঁকিতে থাকতে হয়। অপরিচ্ছন্ন চুলার ধোঁয়া ও কয়লা এবং গোবর পোড়ানোর ধোঁয়া ও কয়লা শিশুদের স্বাস্থ্যের জন্য ভয়ানক।

খাদ্য, পানি, বাতাস ও বিভিন্ন পণ্যের মাধ্যমে শিশুদের শরীরে বিষাক্ত রাসায়নিক পদার্থ মিশে গিয়ে থাকে। এর ফলেও শিশুরা রোগে আক্রান্ত হয়।

ডব্লিউএইচওর গণস্বাস্থ্যবিষয়ক বিশেষজ্ঞ মারিয়া নেইরা জানিয়েছেন, দূষিত পরিবেশের কারণে মৃত্যুর সংখ্যা অনেক বেশি। এতে মৃত্যু, দীর্ঘমেয়াদি অসুস্থতা ও বিভিন্ন রোগ হয়ে থাকে। শিশুদের জন্য সব জায়গা নিরাপদ রাখতে আরো কার্যকরী উদ্যোগ নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।